অনুপ্রেরনায় পথ চলা

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

গল্পটা একটু ভিন্ন। দিন টি ছিল ২৭ জুলাই ২০১৫, বহুল আলোচিত এবং কাঙ্খিত এক স্বপ্নের দিকে আগাচ্ছি। স্বপ্ন দেখা সহজ, কিন্তু সেই স্বপ্ন পূরণ কিছুটা হলে ও কষ্টকর। জীবনে চলার পথে হাজার ও বাধার সম্মুক্ষীন হতে হয়। তার পর ও সব বাধা অতিক্রম করে সামনে আগাতে হয়। জীবন তার নিজ গতিতে চলে, কার ও জন্য অপেক্ষা করে না। হাজার ও বাধা অতিক্রম করে প্রায় সেই স্বপ্নের নিকটে পৌছেছি।

আমার দেখা স্বপ্নটি পূরণ করা অসম্ভব ছিলনা, তবে সেটা পূরণ করা এত টা ও সহজ ছিলনা। আর মাঝ পথে এক বিশাল ধাক্কার সম্মুক্ষীন ও হয়েছি। সেই ধাক্কা টা হয় তো আমার জীবনের জন্য সব থেকে বড় বাধা হতে পারত, যদি না সেই সময় জীবনের জন্য অনুপ্রেরণা পেতাম। দূর থেকে মানুষ কে সান্তনা দেওয়া অনেক সহজ। অপেক্ষা কর, সব সমস্যার সমধান হয়ে যাবে কথাটা বলা অনেক সহজ, কিন্তু বাস্তব জীবনে সেটা প্রয়োগ করা অনেক কঠিন।

এটা বলবনা যে আমি বিপদে পড়েছিলাম, তবে এটা ঠিক যে আমি পথ হারিয়েছিলাম। এটা বলবনা যে আমি হেরে গিয়েছিলাম, তবে আমি প্রায় হেরে যাবার পথে চলতে শুরু করেছিলাম। আর এই দুরুহ জীবন এর সঠিক পথ টা কিছুটা হলে ও সহজ করতে আমাকে সাহায্য করলো দীপ্ত। আমার দেখা স্বপ্ন পূরণে ও’র অবদান হয়ত সর্বোচ্চ না, তবু ও ও’র অবদান অনেক বেশি। ও না হলে হয়ত আমার স্বপ্ন টা পূরণ হত, কিন্তু সেটা সম্পন্ন হতে দীর্ঘ সময়ের প্রয়োজন হত।

আজ আমার সেই স্বপ্ন পূরণের দিন। অনেক বড় না হলেও এটা আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ পাওয়া। তাই বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছি দীপ্ত হাওলাদার কে,ধন্যবাদ জানাচ্ছি নজরুল হাওলাদার, নাভিদ হোসেন এবং বাকি সকলকে যারা আমার এর স্বপ্ন পূরণে সহায়তা করেছে।

Comments

comments